৩১ ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হাইকোর্টের নির্দেশ

বাংলাদেশ

রংপুর, দিনাজপুর ও নীলফামারী জেলার ৩১টি ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে ফৌজদারি ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট তিন জেলার এসপিদের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের জাল আদেশ বানিয়ে ইটভাটা পরিচালনাকারীদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

একইসঙ্গে পুলিশের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইডিকে বিষয়টি যথাযথভাবে তদন্ত করে জাল আদেশ তৈরির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আইন-শৃংখলা বাহিনীকে আগামী ২৫ জুনের মধ্যে আদেশ বাস্তবায়ন বিষয়ে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ সোমবার এ আদেশ দেন। ২০১৭ ও ২০১৮ সালে দাখিল করা দুটি রিট আবেদনের ওপর শুনানি শেষে এই আদেশ দেওয়া হয়। সংশ্লিষ্ট ইটভাটা মালিকদের উপস্থিতিতে এ আদেশ দেন আদালত। ইটভাটা মালিকদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন ও এজে মোহাম্মদ আলী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আল-আমীন সরকার ও সহকারি অ্যাটর্নি জেনারেল মাসুদ রুমী।

ইটভাটা পরিচালনায় স্থানীয় প্রশাসনকে কোনো বাধা না দিতে সম্বলিত জাল আদেশটি আদালতের নজরে আসার পর হাইকোর্ট তা তদন্ত করেন। তদন্তে এই জাতীয় কোনো আদেশ দেওয়া হয়নি বলে নিশ্চিত হবার পর গত ৩০ এপ্রিল এক আদেশে সংশ্লিষ্ট ৩১ ইটভাটা মালিককে ১৬ মে হাইকোর্টে হাজির হবার নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে পুলিশ সুপারদের নির্দেশ দেওয়া হয় তাদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে। এ অবস্থায় স্থানীয় প্রশাসন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতকে নিশ্চিত করেছেন যে, এরই মধ্যে ওইসব ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এই নির্দেশে গতকাল নির্ধারিত দিনে তাদের হাজির করা হয়। এরপর আদেশ দেন আদালত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *