২০৩৪ সালের আগেই ট্রিলিয়ন ডলারের বাজেট: অর্থমন্ত্রী

অর্থনীতি

তার আশা পূরণ হলে আর ১৫ বছরের মধ্যে জাতীয় বাজেট এবারের ১৭ গুণ হবে।

বৃহস্পতিবার এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) আয়োজিত দুদিন ব্যাপী ‘গুড প্রজেক্ট ইমপ্লিমেন্টেশন ফোরাম’র সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী তার উচ্চাশা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, “গত ১০ বছরের চেষ্টায় আমরা অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ১৭টি বড় দেশকে পেছনে ফেলে এসেছি। আমরা বর্তমানে বৈশ্বিক অর্থনীতিতে ৩২তম দেশ।

“আগামী ২০৩০ সাল নাগাদ আমরা ২৪তম অর্থনীতির দেশ হব। এ বছর আমরা বাজেট দিয়েছি ৫ লক্ষ কোটি টাকার বেশি। আগামী ২০৩৪ সালের আগেই বাংলাদেশের বার্ষিক বাজেট হবে এক ট্রিলিয়ন ডলার।”

এক ট্রিলিয়ন বা এক লাখ কোটি ডলার বর্তমান বিনিময় হার অনুযায়ী বাংলাদেশি মুদ্রায় ৮৫ লাখ কোটি টাকা।

মুস্তফা কামাল বলেন, “আমাদের অতীতের অর্জন এবং বর্তমানের ভিতের উপর ভিত্তি করেই এই প্রক্ষেপনটি করা হয়েছে। ট্রিলিয়ন ডলারের বাজেট আমাদের একটি স্বপ্ন, এ স্বপ্নটি আমরা বাস্তবায়ন করব, ইনশাআল্লাহ।”

বাংলাদেশের অগ্রগতিতে বিশ্বজুড়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসার বিষয়টি তুলে ধরে তিনি বলেন, তার দৃঢ় নেতৃত্বেই জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়ন করা হবে।

বাংলাদেশের প্রথম দিককার বাজেটের অর্থায়নের প্রসঙ্গ টেনে মুস্তফা কামাল বলেন, “একটি সময় ছিল যখন আমরা বিদেশি ঋণ ছাড়া কোনো প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারতাম না, আমাদের এডিপির পুরোটাই থাকত দাতাদের অর্থায়নে।

“এখন আমরা সক্ষমতা অর্জন করেছি। আমরা এখন আর বিদেশি ঋণের উপর নির্ভরশীল নই। এখন আমাদের যে সকল প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে, এগুলো সমাপ্ত হলে দেশের চেহারা কল্পনাতীতভাবে পরিবর্তিত হয়ে যাবে। আমরা শুধু চেষ্টা করে যাচ্ছি, কিন্তু এখনও সুফল পেতে শুরু করিনি। তবে আশা করছি, রেজাল্ট হবে শুধু অগ্রগতি আর অগ্রগতি।”

বাংলাদেশের উন্নয়নে এডিবির সহযোহিতার প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, “এডিবি আমাদের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ স্টেকহোল্ডার। তারা এ পর্যন্ত আমাদেরকে বিভিন্ন প্রকল্পে ২৫ বিলিয়ন ডলার অর্থায়ন করেছে। আরও ১০ বিলিয়ন ডলার পাইপলাইনে রয়েছে। এটি আমাদের জন্য অনেক বড় সহযোগিতা, যেটির আমাদের খুব দরকার ছিল।”

ঢাকার শেরে বাংলা নগরের বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) আবাসিক প্রতিনিধি মনমোহন পারকাশ বলেন, “প্রবৃদ্ধি অর্জনের দিক থেকে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের জন্য মডেল। এছাড়া অর্থনীতির অনেক ক্ষেত্রেই চালকের আসনে রয়েছে দেশটি। এমনকি এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে দ্রুত প্রবৃদ্ধি অর্জনের দেশ হচ্ছে বাংলাদেশ।

“বর্তমানে বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি অর্জন অনেক চ্যালেঞ্জিং। এর পরও বিগত অর্থবছরে বাংলাদেশ ৮ শতাংশের ওপরে প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এখন গোটা বিশ্বের জন্য মডেল।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *