গণপূর্ত থেকে প্রাণিসম্পদে শ ম রেজাউল মন্ত্রিসভায় তিন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরদপ্তর পুনর্বণ্টন

জাতীয়

মন্ত্রিসভা গঠনের এক বছরের মাথায় তিন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পুনর্বণ্টন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বৃহস্পতিবার তিন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর দপ্তর বদল করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। গত এক বছরে বর্তমান সরকারের মন্ত্রিসভায় এটি তৃতীয়বার রদবদল। গত ডিসেম্বর মাসে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলের পর মন্ত্রিসভায় পরিবর্তনের আলোচনা ছিল। দল ও সরকারে সেই আলোচনা যতটা জোরালো ছিল সে অনুপাতে পরিবর্তন হয়েছে সামান্য। রুলস অব বিজনেসের ৩(৪) ধারা অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী সময়ে সময়ে মন্ত্রিসভায় যেকোনো ধরনের রদবদল করার ক্ষমতা রাখেন।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমকে দপ্তর বদলিয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী করা হয়েছে। গৃহায়ণ ও গণপূর্তের প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদকে। অন্যদিকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে আসা আশরাফ আলী খান খসরুকে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এই তিন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর মধ্যে শ ম রেজাউল করিম বিদেশ সফরে আছেন।

এই পরিবর্তনের মাধ্যমে গণপূর্ত মন্ত্রণালয় পূর্ণমন্ত্রী হারিয়ে প্রতিমন্ত্রী পেল, আর মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় প্রতিমন্ত্রীর জায়গায় পেল পূর্ণ মন্ত্রী।

২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি মন্ত্রিসভার যাত্রা শুরুর পর ওই বছরের মে মাসে প্রথমবারের মতো দুই মন্ত্রী ও দুই প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পুনর্বণ্টন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সে যাত্রায় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলামকে শুধু স্থানীয় সরকার বিভাগের মন্ত্রী করে দায়িত্ব কমিয়ে দেওয়া হয়েছিল। একই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যকে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের দায়িত্ব দেওয়া হয়। অন্যদিকে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের দায়িত্ব কমিয়ে শুধু ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে সীমিত করা হয়েছিল। বিপরীতে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহেমদ পলককে তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এর বাইরে মুরাদ হাসানকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়।

এরপর জুলাই মাসে দ্বিতীয় দফা মন্ত্রিসভায় ছোট পরিবর্তন আনা হয় বেগম ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরাকে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব এবং প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদকে পূর্ণ মন্ত্রী করার মাধ্যমে। মন্ত্রিসভায় এবার তৃতীয় দফার পরিবর্তনে নতুন কেউ যুক্ত না হওয়ায় দপ্তর বদল হওয়া মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের কাউকে শপথ নিতে হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *