খালেদা, তারেকসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ ১৪ নভেম্বর

বাংলাদেশ

ড্যান্ডি ডায়িংয়ের সংক্রান্ত ঋণ খেলাপি মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তাঁর ছেলে তারেক রহমানসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ১৬ নভেম্বর দিন ধার্য করা হয়েছে। আজ বুধবার ঢাকার অর্থঋণ আদালত নম্বর-১ এর বিচারক জাহাঙ্গীর হোসেন এই তারিখ ধার্য করেন।

এই মামলার কার্যক্রম হাইকোর্ট আবারও ছয় মাসের জন্য স্থগিত করায় সাক্ষ্যগ্রহণের সময় পেছানো হয়েছে বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে। এর আগেও হাইকোর্ট এই মামলার কার্যক্রম স্থগিত করেছিলেন।

গতকাল সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য দিন ধার্য ছিল। আদালতে শুনানির সময় বিবাদী পক্ষে জানানো হয় হাইকোর্টে এই মামলার স্থগিতাদেশের সময় আরও ছয় মাস বর্ধিত করেছেন। এ সংক্রান্ত হাইকোর্টেও আদেশ দেখে আদালত সাক্ষ্যগ্রহণ পিছিয়ে দেন।

৪৫ কোটি ৫৯ লাখ ৩৭ হাজার ২৯৫ টাকা ঋণখেলাপির অভিযোগে ২০১৩ সালের ২ অক্টোবর  সোনালী ব্যাংকের স্থানীয় শাখার জ্যেষ্ঠ নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম এই মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, ১৯৯৩ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বিবাদীরা ড্যান্ডি ডায়িংয়ের অনুকূলে সোনালী ব্যাংকে ঋণের জন্য আবেদন করেন। ওই বছরের ৯ মে সোনালী ব্যাংক ঋণ মঞ্জুর করে। কিন্তু ঋণ পরিশোধ করেন না বিবাদীরা। ২০০১ সালের ১৬ অক্টোবর বিবাদীদের আবেদনক্রমে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ তাদের সুদ মওকুফ করে। পরবর্তীতে বিবাদীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংক আবারও ঋণ পুনঃতফসিলীকরণ করে। এরপরও বিবাদীরা ঋণ পরিশোধ না করে বার বার কালক্ষেপণ করতে থাকেন। ২০১০ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ঋণ পরিশোধের জন্য চুড়ান্ত নোটিস দেওয়া হয়। কিন্তু তাও পরিশোধ করা হয় না।

পরে ড্যান্ডি ডায়িং লিমিটেড ও এর পরিচালনা পর্যদের সদস্য তারেক রহমান, আরাফাত রহমান কোকো, প্রয়াত সাঈদ এস্কান্দারের ছেলে শামস এস্কান্দার ও সাফিন এস্কান্দার, মেয়ে সুমাইয়া এস্কান্দার, স্ত্রী বেগম নাসরিন আহমেদ, গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, মামুনের স্ত্রী শাহীনা ইয়াসমিন, কাজী গালিব আহমেদ, শামসুন নাহার ও মাসুদ হাসানের বিরুদ্ধে মামলা করে ব্যাংক।

আরাফাত রহমান কোকো মারা যাওয়ায় তার মা খালেদা জিয়া, স্ত্রী শর্মিলা রহমান এবং দুই মেয়ে জাফিয়া রহমান ও জাহিয়া রহমানকে বিবাদী করার জন্য ২০১৫ সালের ৮ মার্চ আদালতে আবেদন করে সোনালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।
আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের ১৬ মার্চ আদালত এ মামলায় তাদের বিবাদী করেন। ২০১৬ সালের ২ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াসহ ১৬ বিবাদীর বিরুদ্ধে ইস্যু গঠনের মধ্য দিয়ে মামলার বিচার কার্যক্রম শুরু হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *