ইবনে সিনার চেয়ারম্যানসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা

স্বাস্থ্য

ডেঙ্গু জ্বরের পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ ইবনে সিনা হাসপাতালের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম দিদার হোসেনের আদালতে মামলাটি করেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির সদস্য অ্যাডভোকেট রমজান আলী সরকার। আদালত ঘটনাটি ধানমন্ডি থানাকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

যাদের আসামি করা হয়েছে তারা হলেন ইবনে সিনা হাসপাতালের (ধানমন্ডি শাখা) চেয়ারমান, ইবনে সিনা গ্রুপের চেয়ারমান, ইবনে সিনা ডায়াগনোস্টিক অ্যান্ড ইমেজিং সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও কনসালট্যান্ট (হেমাটোলজিস্ট) প্রফেসর কর্নেল (অব.) মো. মনিরুজ্জামান।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, গত ২৫ জুলাই বাদী আদালতের নিজ চেম্বারে জ্বর জ্বর অনুভব করেন। পরে সহকর্মী অ্যাডভোকেট জাফর আহমেদ সুমনকে নিয়ে জ্বর পরীক্ষা করতে তিনি ধানমন্ডি ইবনে সিনা হাসপাতালে যান। আউটডোরে পরামর্শ করা হলে তারা ডেঙ্গু জ্বরের ভয়াবহতা বিবেচনা করে রক্ত পরীক্ষা করার পরামর্শ দেন। ওইদিন ইবাদী নির্ধারিত ফি দিয়ে রক্তের নমুনা প্রদান করেন। হাসপাতালে কর্তব্যরতরা পরদিন রক্ত পরীক্ষার প্রতিবেদন সংগ্রহ করতে বলেন। বাদী পরদিন সন্ধ্যায় রক্ত পরীক্ষার প্রতিবেদন হাতে পান।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, বাদীর রক্তের প্লাটিলেট সাত লাখ ৮৪ হাজার সিএমএম। বাদী তখন আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তিনি বিমর্ষও হয়ে পড়েন। পরে বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ওইদিনই সন্ধ্যা ৭ টায় আবার রক্ত পরীক্ষা করান। ওই পরীক্ষায় দেখা যায় রক্তের প্লাটিলেট দুই লাখ।

মামলায় আরো বলা হয়, একজন সুস্থ মানুষের রক্তের প্লাটিলেট লেভেল দেড় থেকে সাড়ে চার লাখ। কিন্তু ইবনে সিনার রিপোর্টে অতিরিক্ত প্লাটিলেটের কথা বলা হয়েছে যা কোনো সুস্থ মানুষের ক্ষেত্রে হতে পারে না। ইবনে সিনা হাসপাতাল হাসপাতাল বাদীর সরলতা ও অসুস্থতাকে পুঁজি করে শারীরিক, মানসিক, আর্থিক এবং সামাজিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে এটি এক ধরণের প্রতারণা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *