ইউএসটিসির শিক্ষক লাঞ্ছনা: চার শিক্ষার্থী বহিষ্কার

জেলা খবর

চট্টগ্রামে অবস্থিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউএসটিসি’র এক শিক্ষকের গায়ে কেরোসিন ঢালার ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটির চার শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির  কর্তৃপক্ষ এই ব্যবস্থা নিয়েছে।

শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসানকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার এবং ওই ঘটনায় তার সহযোগী শেখ রাসেল শাহেন শাহ, মো. আলী হোসেন ও ময়নুল আলমকে এক বছর মেয়াদে বহিষ্কার করা হয়েছে। এদের মধ্যে মাহমুদুলকে ঘটনার দিনই পুলিশ গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দফা রিমান্ডে নেওয়া হয়।

ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি চিটাগং (ইউএসটিসি)-এর ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার দিলীপ কুমার বড়ুয়া আজ বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই)  চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে শিক্ষক লাঞ্ছনাকারী শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন।

গত ২ জুলাই প্রতিষ্ঠানটির একদল শিক্ষার্থীর হাতে লাঞ্ছিত হন ইংরেজির অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদ। কয়েক বছর আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসর নেওয়ার পর ইউএসটিতে ইংরেজি বিভাগের উপদেষ্টা হিসেবে যোগ দেন তিনি। ওই দিন ক্যাম্পাসের ভেতর এই শিক্ষককে লাঞ্ছিত করে তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে দেওয়া হয়। পরে ওই শিক্ষার্থীরাই এই অধ্যাপকের পদত্যাগের দাবিতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

লিখিত বক্তব্যে দিলীপ কুমার বলেন, অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদকে লাঞ্ছিত ও গায়ে কেরোসিন ঢালার ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছিল। কমিটির দেওয়া প্রতিবেদনের ভিত্তিতে গত ৮ জুলাই শৃঙ্খলা কমিটির জরুরি সভায় চারজনকে চিহ্নিত করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ইউএসটিসির প্রক্টর কাজী নূর-ই আলম সিদ্দিকী বলেন, ‘শৃঙ্খলা কমিটি মাহমুদুলের ছাত্রত্ব বাতিল এবং চিরতরে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। তবে তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য সাত দিনের সময় দেওয়া হয়েছে। অপর তিনজনকে এক একাডেমিক শিক্ষাবর্ষ বহিষ্কার এবং বিধি মোতাবেক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

শিক্ষা কার্যক্রমে ইউএসটিসির চলমান ও ভবিষ্যত বিভিন্ন কর্মসূচির বিষয়টিও তুলে ধরা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *